হেরে যাবেন বুঝেই মানুষকে উত্তেজিত করছেন মমতা: দিলীপ

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের যাবতীয় অভিযোগের পালটা সরব হলেন দিলীপ ঘোষ। তিনি বলেন, হেরে যাবেন বুঝতে পেরেই মানুষকে উত্তেজিত করছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। রইল বিস্তারিত

  • মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের যাবতীয় অভিযোগ খারিজ করে দিলেন BJP-র রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ।
  • তিনি বলেন, ‘নির্বাচনে হেরে যাবেন বলেই এই ধরনের মন্তব্য করছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।’
  • ‘মানুষকে উত্তেজিত করার চেষ্টা করছেন।’
  • এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক: মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের যাবতীয় অভিযোগ খারিজ করে দিলেন BJP-র রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। তিনি বলেন, ‘নির্বাচনে হেরে যাবেন বলেই এই ধরনের মন্তব্য করছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মানুষকে উত্তেজিত করার চেষ্টা করছেন।’ এখানেই শেষ নয়, দিলীপ আরও বলেন, ‘মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় অভিযোগ করলেই মানতে হবে নাকি!’
  • প্রসঙ্গত, এদিন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় অভিযোগ করেন, নন্দীগ্রামে ৮০ শতাংশ ছাপ্পা ভোট পড়েছে। তৃণমূল সুপ্রিমোর এই দাবি প্রসঙ্গে দিলীপ ঘোষ বলেন, ‘এটা অবাস্তব কথা। ওনার দলের পক্ষেও এত ছাপ্পা ভোট দেওয়া সম্ভব নয়। আর তা হয়নি বলেই উনি এই ধরনের অভিযোগ তুলছেন।’ অবাঞ্চিত কেউ বুথে প্রবেশ করার চেষ্টা করলে আটকাবে কেন্দ্রীয় বাহিনী। সাধারণ মানুষ পরিচয়পত্র দেখিয়ে ভোট দেবেন, স্পষ্ট বার্তা দিলীপের।
  • উল্লেখ্য, তৃণমূল সুপ্রিমো বলেন, ‘নির্বাচন কমিশনে অভিযোগ জানানো হয়েছে। ৬৩টি অভিযোগ পড়েছে। কোনও ব্যবস্থা নেয়নি। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর নির্দেশেই এমনটা করা হচ্ছে। আমরা আদালতে। আইনি ব্যবস্থা নেব।’ নন্দীগ্রামের ঘটনার পর সুষ্ঠু ভোটের দাবি জানিয়ে রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়কে ফোন করেন মমতা। নন্দীগ্রামের বয়ালে গ্রামবাসীদের সঙ্গে কথা বলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।
  • জানা যাচ্ছে, নন্দীগ্রামের বয়ালের ভক্ত প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৭নং বুথ থেকে বেরোনোর সময় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে ঘিরে ‘জয় শ্রীরাম’ ধ্বনি দেওয়া হয়। তৃণমূল ও BJP কর্মীদের মধ্যে রীতিমতো সংঘর্ষের পরিস্থিতি তৈর হয়েছে। ঘটনাস্থলে মোতায়েন করা হয়েছে RAF, পুলিশ
  • ব্যারিকেড দিয়ে গোটা এলাকা ঘিরে ফেলেছে পুলিশ। দু’পক্ষের মধ্যে তুমুল বচসা চলছে। তৃণমূলের তরফে অভিযোগ, তাঁরা ভোট দিতে পারেননি ওই বুথে। BJP ভয়ের পরিবেশ তৈরি করছে বলে অভিযোগ করেছেন তাঁরা। দু’পক্ষই কার্যত মারমুখী হয়ে আছে। বুথের ভিতরে রয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। জানা যাচ্ছে, ওই বুথে সকাল থেকেই উত্তেজনা ছিল। এদিন দুপুরে রেয়াপাড়ার বাড়ি থেকে বেরোন তৃণমূলনেত্রী। তারপরই বয়ালের এই বুথে যান তিনি।
  • কেন দীর্ঘক্ষণ বুথের মধ্যে থাকবেন নন্দীগ্রামের তৃণমূল প্রার্থী, তা নিয়ে বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন BJP কর্মী-সমর্থকরা। এই প্রসঙ্গে নন্দীগ্রামের BJP প্রার্থী শুভেন্দু অধিকারী কটাক্ষের সুরে বলেন, ‘ভোট শুরু হয়েছে সকালে, আর তিনি বেরিয়েছেন দুপুরের পর। জয় শ্রীরামকে ভয় পেয়েছেন।’ এই প্রসঙ্গে দিলীপ ঘোষ বলেন, ‘যা সমস্যা হয়েছে সেটা

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here