আন্তর্জাতিক মাইন বিরোধী দিবস : আজও প্রশ্ন তোলে যৌক্তিকতার

    বিশ্বের বিভিন্ন দেশের বিভিন্ন প্রান্তে আজও প্রাণ যায় ল্যান্ডমাইন বিস্ফোরণে। স্থলযুদ্ধের ক্ষেত্রে অন্যতম শক্তিশালী হাতিয়ার বলা হয় ল্যান্ডমাইনকে। স্থল মাইন নিষিদ্ধ করে অটোয়ার কনভেনশন সই করেছিল ১৫৬টি দেশ। কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হয়নি।

    ইতিহাসের পাতায় জায়গা করে নেওয়া একাধিক যুদ্ধে অব্যহৃত ল্যান্ডমাইন আজও অসাবধানে পা ফেলা মানুষের প্রাণ কাড়ছে। সে সব যুদ্ধে হয়ত ফয়সালা হয়ে ক্ষমতার স্থানান্তরও ঘটে গিয়েছে। কিন্তু থেকে গিয়েছে ল্যান্ডমাইন। মাইনের প্রাণঘাতী হুমকি এখনও বিশ্ব থেকে মুছে ফেলা সম্ভব হয়নি। যার অন্যতম নিদর্শন আফগানিস্তান।

    ল্যান্ডমাইন বিস্ফোরণে রক্তাক্ত দেশ আফগানিস্তান। ১৯৭৯ সালে সোভিয়েত সেনা আফগানিস্তানে একটি হামলা চালিয়েছিল। ব্যবহার করা হয়েছিল অগুণতি ল্যান্ডমাইন। এমনকী তার ১০ বছর পর, আফগানিস্তান থেকে সরে যাওয়ার সময় তারা পুঁতে যায় ল্যান্ডমাইনগুলি। যার মাশুল আজও গুণছে পাঠানের দেশ।

    পরিসংখ্য়ান বলছে আফগানিস্তানে এখনও পর্যন্ত লক্ষাধিক শিশু ও গবাদি পশু মারা গিয়েছে ল্যান্ড মাইন বিস্ফোরণে। এমনকি যেখানে এখন শষ্য উৎপাদিত হয়, সেই মাটির তলা থেকেও পাওয়া গিয়েছে ল্যান্ড মাইন।

     

    ইউনিসেফ (UNICEF)-এর দেওয়া হিসেব বলছে প্রতি মাসে ৮০০ জনেরও বেশি মানুষ মারা যান ল্যান্ডমাইন বিস্ফোরণে। ১৯৭৫ সালের পর থেকে ১০ লক্ষেরও বেশি মানুষের প্রাণ গিয়েছে এই ধরণের দুর্ঘটনায়। বিশেষজ্ঞরা বলছেন এই ধরণের প্রাণহানির ঘটনা কবে কীভাবে শেষ হবে, কেউ জানে না। কারণ এখনও বিশ্ব জুড়ে মাটির তোলায় পোঁতা রয়েছে ১১০ মিলিয়ন ল্যান্ডমাইন। ৬৪টি দেশের মাটির তলায় এই বিপুল পরিমাণ মাইন পোঁতা রয়েছে।

    উল্লেখ্য বিস্ফোরণ না হওয়া পর্যন্ত বছরের পর বছর ধরে মাইন সক্রিয় ও তাজা অবস্থায় থাকতে পারে। ফলে নির্দিষ্ট পরিমাণ চাপ পড়ায়, যে কোনও মুহুর্তে তা ফেটে বিস্ফোরণ হতে পারে। আফগানিস্তান প্রসঙ্গে বিশেষজ্ঞদের মত, অনেক ক্ষেত্রে ল্যান্ডমাইন বিস্ফোরণের ভয়ে সেদেশের উন্নয়নের কাজ থমকে যায়। রাস্তা তৈরি থেকে স্কুল তৈরি, সব ক্ষেত্রেই প্রয়োজন খনন কাজের। আর তা করতে গেলেই বিস্ফোরণের আশঙ্কা তৈরি হয়।

    ল্যান্ডমাইন মূলত দুধরণের। একটি হল অ্যান্টি ট্যাংক ল্যান্ডমাইন, অপরটি হল অ্যান্টি পার্সোনেল ল্যান্ডমাইন। অ্যান্টি পার্সোনেল মাইন সবথেকে শক্তিশালী। এতটাই শক্তিশালী যে একটি শিশুর পায়ের চাপেও ভয়াবহ বিস্ফোরণ ঘটাতে পারে এই ধরণের মাইন। মাইনের নানা আকার ও আয়তন হয়। কখনও খেলনার আকারে, কখনও কোনও ফলের আকারে ল্যান্ডমাইন তৈরি হতে পারে।

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here